শীতকালে বাচ্চাদের সর্দি কাশি হওয়া থেকে সুরক্ষিত রাখবেন কীভাবে? | Aura of Love

শীতকালে বাচ্চাদের সর্দি কাশি হওয়া থেকে সুরক্ষিত রাখবেন কীভাবে?

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

শীতের শুরুতে বাচ্চাদের ঠাণ্ডা লেগে যায় খুব সহজেই। আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণেই এই ধরনের অসুবিধের শুরু হয়। প্রাপ্তবয়স্কদেরই নানা ধরনের অসুখের মুখোমুখি পড়তে হয়। সেখানে বাচ্চাদের অনাক্রম্যতা এমনিতেই অনেকটা কম থাকে আর সেই কারণেই খুব তাড়াতাড়ি তারা সর্দি কাশিতে ভুগতে পারে। আর এই সর্দি কাশি থেকে শিশুদের রক্ষা করতে কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি মেনে চললেই হবে।

শুকনো আদার সঙ্গে এক চামচ মধু:

এক চিমটি শুকনো আদার সঙ্গে এক চামচ মধু মিশিয়ে শিশুকে খাওয়ান, এতে শুকনো কাশির কষ্ট থেকে মুক্তি পাবে। যদি সর্দি বুকে বসে যায় তাহলে এক চিমটি গোলমরিচ গুঁড়োর সঙ্গে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে শিশুকে খাওয়ান, সর্দি বেরিয়ে যাবে। আপনার শিশুর বয়স যদি এক বছরের কম হয়, তা হলে কিন্তু ঠান্ডা লাগার ঘরোয়া টোটকা হিসেবে মধু ব্যবহার করবেন না।

রসুন তেল মালিশ:

আধ চা চামচেরও কম পরিমাণ কালো জিরে, দু’কোয়া রসুন এবং এক কাপ ঘানির সর্ষের তেল গরম করে সেই তেলটি দিয়ে বাচ্চার বুক-পিঠ মালিশ করুন। অনেকসময়ে সর্দি বুকে জমে যায়, কাজেই বুকে ও পিঠে ভাল করে মালিশ করুন। রাতে শোওয়ার আগেও বাচ্চার পায়ের তলায় এবং গলায় ওই তেলটি দিয়ে মালিশ করুন এবং তারপরে আর জল যেন না লাগে সেদিকে খেয়াল রাখবেন।

কাঢ়া:

শুধু শিশুদের জন্য না, বড়দের জন্যও সর্দি-কাশি দূর করার মোক্ষম দাওয়াই এই ঘরোয়া টোটকা। এক টেবিল চামচ গুড়, দুটি গোটা গোলমরিচ, এক কাপ জল এবং এক চিমটি জিরে একসঙ্গে নিয়ে ফুটিয়ে নিন। তৈরি হয়ে যায় কাঢ়া। এবারে দু’চামচ করে শিশুকে খাওয়ান। ছোট বাচ্চাদেরকে একবারে দু’চামচের বেশি খাওয়াবেন না, কারণ গুড় ও গোলমরিচ শরীরে তাপ উৎপন্ন করে, যা শিশুদের পক্ষে অস্বস্তিকর হতে পারে।

কিছু সতর্কতা:

  • প্রথমত যে ঘরোয়া টোটকাই ট্রাই করুন না কেন, তা যেন আপনার শিশুর বয়স অনুপাতে হয়। আপনার শিশুর বয়স বছর খানেক বা তার কম হলে কিন্তু তার ঠান্ডা লেগে সর্দি-কাশি হলে তাকে চাইলেও স্টিম নেওয়াতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে ঊষ্ণ তেল মালিশ করলে কাজে দেবে।
  • সর্দি-কাশি অল্প থাকতেই তার চিকিৎসা করান, বাড়াবাড়ি হয়ে গেলে নিমোনিয়া পর্যন্ত হয়ে যেতে পারে।
  • শীতকালে যাতে শিশুর ঠান্ডা না লাগে সেজন্য কিছুক্ষণ হলেও শিশুকে রোদে রাখুন। এতে ভিটামিন ডি শরীরে ঢুকবে এবং শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়বে।
  • ছোট বাচ্চারা এই হালকা শীতে গরম পোশাক পরতে চায় না, কিন্তু একটা পাতলা জ্যাকেট বা সোয়েটার তাকে পরিয়ে রাখুন; বিশেষ করে ভোরে এবং রাতের দিকে।
  • খেয়াল রাখুন, আপনার বাচ্চা যাতে ঠান্ডা খাবার বা পানীয় না খায়।
  • একদম ছোট বাচ্চাকে ধরার আগে ভাল করে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিন যাতে জীবাণু না ছড়ায়।
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Article

Recent Article

Relationship Tips: প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ার আগে এই কয়টি জিনিস মাথায় রাখুন

বহুদিন ধরে যে মানুষটি আপনার মনে জায়গা দখল করে বসে আছে, তা মন খুলে বলুন। তবে, প্রেমের প্রস্তাব দেব বললেই হল না। মনের কথা জানানো

দূর হবে সকল বাধা, রবিবার পালন করুন সূর্য দেবতার ব্রত

হিন্দু শাস্ত্রের সাতটি দিন কোনও না কোনও দেবতাকে উৎসর্গ করা হয়। সোমবার শিবের (Lord Shiv) বার, মঙ্গলবার দিনটি (Lord Hanuman) বজরঙ্গীকে উৎসর্গ করা হয়। তেমনই

প্যারাসিটামল খেলে ছোঁবেন না মদ, জানুন বিশেষজ্ঞের মত

প্যারাসিটামল হল ওভার দ্য কাউন্টার ড্রাগ। অর্থাৎ ওষুধের দোকানে চাইলেই এই ওষুধ পাওয়া যায়। তাই মানুষও এই ওষুধ কিনে খান। বিশেষজ্ঞদের কথায়, এই ওষুধ জ্বর

Palmistry: আঙুলের বিভিন্ন অংশে কাটা চিহ্ন আছে? এটা থাকলে কী হয় জানেন?

ক্রশ চিহ্ন একটি গুরুত্বপূর্ণ চিহ্ন। ক্রশ চিহ্ন তালুর বিভিন্ন স্থানে যেমন বিভিন্ন বিষয় নির্দেশ করে, ঠিক তেমনই বিভিন্ন আঙুলে বিভিন্ন লক্ষণ নির্দেশ করে। ক্রশ চিহ্ন

ভ্যালেন্টাইন’স ডে-র উপহার দেখে বুঝে নিন আপনাদের সম্পর্কের ধরন

ভ্যালেন্টাইন’স ডে উপলক্ষে সর্বত্র প্রেমের ছড়াছড়ি, উপহার বিনিময় দেখা যায় ! জানেন কি, আপনার আর আপনার পার্টনারের মধ্যে যে উপহার বিনিময় হয়, তা থেকে আপনাদের

error: Content is protected !!